নরসিংদীর রায়পুরার বিভিন্ন গ্রামে নদী ভাঙ্গন অব্যাহত বালু উত্তোলন বন্ধের নির্দেশ মানছেন না ইজারাদাররা

নরসিংদীর রায়পুরার বিভিন্ন গ্রামে নদী ভাঙ্গন অব্যাহত বালু উত্তোলন বন্ধের নির্দেশ মানছেন না ইজারাদাররা




নরসিংদীর রায়পুরার চরাঞ্চলে মেঘনা নদীর অব্যাহত ভাঙ্গনে বিলীন হয়ে যাচ্ছে শত শত ঘর-বাড়ি, হুমকির সম্মুখীন হয়ে পড়েছে বিভিন্ন গ্রাম। ভাঙ্গ হচ্ছে অব্যাত। নদী ভাঙ্গনে বিলীন হয়ে যাওয়া খেটে খাওয়া সহায় সম্বলহীন মানুষের মাথা গোজার ঠায় নেই। নরসিংদী জেলার রায়পুরা উপজেলার মেঘনায় যত্রতত্র ড্রেজার মেশিন বসিয়ে অপরিকল্পিত ভাবে বালু উত্তোলনের ফলে নদী ভাঙ্গন শুরু হলেও স্থানীয় প্রশাসনের নজরদারি নেই বলে স্থানীয়দের অভিযোগ। তবে বিষয়টি আমলে নিয়ে নরসিংদী জেলা প্রশাসন গত ৩০ সেপ্টেম্বর রায়পুরা উপজেলার চানপুর ইউনিয়নের পূর্ব হোসেনপুর বালু মহালটির ইজারা বাতিল করে বালু উত্তোলন বন্ধের নির্দেশ দিলেও রায়পুরা উপজেলা প্রশাসন তা বাস্তবায়ন করছেন না।

জানা যায়, উক্ত বালু মহালটি ইজারাদার মেসার্স জয় বাংলা ট্রেডার্স-এর মালিক আসাদুজ্জামান বাবু রায়পুরা-৫ আসনের সংসদ সদস্য রাজিউদ্দিন আহমেদ রাজুর পিএস। তাছাড়া রায়পুরা উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুস ছাদেকও এসকল অবৈধ বালু উত্তোলন থেকে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ রয়েছে। অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের ফলে রায়পুরা উপজেলার মেঘনা নদীর ভাঙ্গন ক্রমেই রুপ নিচ্ছে ভয়াবহতায়। ইতোমধ্যেই নদী গর্ভেবিলীন হয়ে গেছে গ্রামের পর গ্রাম। নতুন করে হুমকির মুখে রয়েছে রায়পুরা উপজেলার মজিদপুর, মনিপুর এবং মির্জারচর ইউনিয়নের মির্জারচর বাজার, চরলাপাং, বড়িকান্দি, পাড়াতলী ইউনিয়নের কাচারিকান্দিসহ বেশ কটি গ্রামের শতশত বাড়িঘর, গাছপালাসহ ফসলী জমি। দীর্ঘদিন ধরে অবৈধ বালু উত্তোলনে নদী ভাঙ্গনের কবলে পড়ে বসত-ভিটা ও ফসলি জমি হারিয়ে অনেকেই এখন নিস্বঃ হয়ে পড়েছে।

ইতিমধ্যেই জনগণের দাবীর প্রেক্ষিতে জেলা প্রশাসন বিষয়টি আমলে নিয়ে গত সেপ্টেম্বর মাসে বালু মহালটির ইজারা বাতিল করে মহালটি বন্ধের ঘোষণা দেয়। সেই সাথে বিভাগীয় কমিশনারকে উক্ত মৌজা থেকে মহালটি স্থায়ীভাবে বন্ধ করার জন্য অনুরোধ জানান। এ বিষয়ে জানতে চাইলে রায়পুরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: শফিকুল ইসলাম জানান, নদী বেষ্টিত রায়পুরায় বেশ কিছু অঞ্চলে ভাঙ্গনসহ নানা সমস্যা রয়েছে। ভাঙ্গনের কারণে চিহ্নিত পূর্ব হোসেননগর বালু মহালটির ইজারা বাতিল করা হয়েছে। তবে পুনরায় মহালটির ইজারাদাররা বালু উত্তোলন করছে এ বিষয়ে আমার জানা নেই। অচিরেই তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

উল্লেখ্য, চাঁনপুর ইউনিয়নের পূর্ব হোসেননগর মৌজায় চলতি বাংলা সনের জন্য জয়বাংলা ট্রেডার্স নামক প্রতিষ্ঠানকে বালুমহাল ইজারা দেয় জেলা প্রশাসন। অভিযোগ রয়েছে বালু মহালের ইজারাদাররা প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে নির্ধারিত স্থান থেকে প্রায় তিন কিলোমিটার দুরে পাড়াতলী ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে অবৈধ ড্রেজার মেশিন বসিয়ে নিয়ম বর্হিভূতভাবে মেঘনার তীরবর্তী এলাকা থেকে বালু উত্তোলনের কারণে দেখা দিয়েছে এসব ভাঙ্গন।

বার্তা প্রেরক
মো: নুরুল ইসলাম
নরসিংদী প্রতিনিধি







মন্তব্য করুনঃ

আপনার মন্তব্য লিখুন!
এখানে আপনার নাম লিখুন